aimatropawakhabor
সকাল
শরীয়তপুর, মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২০ইং
aimatropawakhabor
শরীয়তপুর, মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী, ২০২০ইং
ব্রেকিং নিউজ
শিরোনাম

সখিপুরের ইউএনও-ওসি ক্ষমা চেয়ে পার পেলেন

১৭-ডিসেম্বর-২০১৯, রাত ৮:০৫     ২২৪

itpoka

অনলাইন ডেস্ক- 

পরিচয় জানতে গিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের এক আইনজীবীকে অশালীনভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করার ঘটনায় টাঙ্গাইলের সখিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন হাইকোর্টে উপস্থিত হয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। পরে আদালত তাদের সতর্ক করে ক্ষমা করে দেন।

 

মঙ্গলবার বিচারপতি 'এফআরএম নাজমুল আহাসান' ও বিচারপতি 'কেএম কামরুল কাদেরের' সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এমন আদেশ দেন।

 

এসময় আদালত এই দুই কর্মকর্তার উদ্দেশে বলেন, ‘মাঠ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তাদের নৈতিকতার জন্য আরও প্রশিক্ষণ দেওয়া প্রয়োজন। তারা বিষয়টি মানবিক মনে করে দেখবেন এবং সেবক হিসেবে কাজ করে যাবেন। সরকারি কর্মকর্তা  ও পুলিশ অফিসারের কৃতকর্মের জন্য গোটা বিভাগের সেবা যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয় সেজন্য সচেষ্ট হতে হবে।’

 

সংশ্লিষ্ট থানা নির্বাহী অফিসার ও ওসি নিঃশর্তভাবে আদালতের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এসময় আদালত রাষ্ট্রেপক্ষের সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল প্রহোলাদ দেবনাথের কাছেও তাদেরেকে ক্ষমা চাইতে বলেন। পরে তারা ক্ষমা চান।

 

আদালত এই দুই কর্মকর্তারকে আরও বলেন, কোনোভাবেই যেন রিট পিটিশনারকে হয়রানি না করা হয়।

 

ইউএনও এবং থানা নির্বাহী অফিসারের পক্ষে আদালতে শুনানি করেন একেএম ফায়েজ।

 

 

উল্লেখ্য  টাঙ্গাইলের সখিপুরের গজারিয়ার একটি সরকারি পুকুর ইজারায় সর্বোচ্চ দরদাতা অপু আহমেদকে ইজারা না দিয়ে তার চেয়ে কম দরদাতাকে পুকুরটি লিজ দেওয়া হয়। এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে অপু আহমেদ হাইকোর্টে রিট করেন। পরে আদালত এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইন কর্মকর্তাকে খোঁজখবর নিতে বলেন।

 

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোহাম্মদ সাইফুল আলম বলেন, ইউএনও এ বিষয়ে তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। উনি ওসি সাহেবকে বলেন, আইন কর্মকর্তার আইডেন্টিটি ঠিক আছে কি না তা যাচাই করার জন্য। মামলার বাদী অপু আহমেদ তাকে ফোন করে ধমক দেন। ব্যাপারটা হাইকোর্টের নজরে আনার পর ইউএন এবং ওসিকে ব্যক্তিগতভাবে হাজিরের নির্দেশ দেন।


সারাদেশ

সর্বশেষ খবর

সর্বাধিক পঠিত